স্ট্যাটাস অব দ্য ডে – ০১

সুবীর জেভিয়ার নকরেক, সি ই ও, নকরেক আইটি, ঢাকা, বাংলাদেশ

বিনিময়যোগ্য সেবার ক্ষেত্রে আসলে আমাদের কোনো গর্ব করা উচিত নয়। গর্ববোধ করা অপেক্ষা সফলতার ক্ষেত্রে কাজকে উপভোগ করা সমীচীন।

আইটি খাতে সরকার একটা বিপ্লব সৃষ্টি করেছে। প্রত্যেকটি জেলায় জেলায় যুবাদের প্রশিক্ষন দিয়েছে। সরকারের উদ্যোগ সত্যিই ইতিবাচক ছিল। জোনায়েদ হোসেন পলক এম পি, এবং সজীব ওয়াজেদ জয় অবশ্যই এক্ষেত্রে প্রশংসার দাবি রাখে। বিভিন্ন সরকারি খাতে অনেক বিনিয়োগ করা হয়েছিল ঠিকই কিন্তু আসলে তৃণমূল পর্যায়ে যারা এটা পরিচালনা করে, তাদের চেটেপুটে খাওয়ার সুবাদে সরকারী অনেক কাজই সফলতার মুখ দেখে না।

সরকারী প্রজেক্টে কাজ করার সুযোগ পেয়েও নিজে থেকে একক প্রচেষ্টায় যাত্রা শুরু হয়েছিল নকরেক আইটি ইন্সটিটিউট এর। বর্তমানে আমি পর্যালোচনা করে দেখি যা, অন্তত পক্ষ্যে ৬০% আদিবাসী সম্প্রদায়ে এটি পরিচিতি লাভ করেছে এর নিয়মানুবর্তিতা, একনিষ্ঠ সেবা, একাগ্রতা এবং প্রতিনিয়ত উন্নতির যাত্রায়। এই প্রতিষ্ঠানে ইতিমধ্যে সরকারী ম্যাজিস্ট্রেট, সরকারী নার্স, ইঞ্জিনিয়ার, মার্চেন্ডাইজার, ব্যাংকার, আইনজীবী, অসংখ্য এনজিও স্পেশালিস্ট, মাল্টিন্যাশনাল জব হোল্ডার, অসংখ্য ছাত্র, গৃহিনীদের আমরা ট্রেইনিং দিয়েছি দেশের মধ্যে কিংবা দেশের বাইরেও। সার্ভিস কিংবা টিচিং মেথড অথবা নিয়মানুবর্তিতা এবং কথা দিয়ে কথা রাখার ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদেরর মূল্যায়ন অনুযায়ী তাদের দৃষ্টিতে নকরেক আইটি’র নিরবচ্ছিন্ন সেবা অতুলনীয়।

একজন সাধারণ শিক্ষার্থী কিংবা সরকারী আমলা কিংবা যেকেউ আমাদের কাছে সমান সেবা পেয়েছে এবং দায়িত্বের ক্ষেত্রে অবহেলা কখনো করেনি আমাদের টিম।
আমরা দেখতেই পাচ্ছি আইটি এর বর্তমান এবং ভবিষ্যত এর বিপুল সম্ভাবনা। এক্ষেত্রে একটি জিনিসই ভাবি, দক্ষতার উন্নয়নে এই ছাত্র কিংবা বেকারদের এত অনীহা কেন?

অধিকাংশ ক্ষেত্রে আমাদের শিক্ষার্থীদের ব্যাকগ্রাউন্ড জিজ্ঞাসা করা হয়না, কারণ আইটি সেক্টরে আপনি ১৬/১৮ বছর হলে বেসিক কম্পিউটার জানলেই একটা পর্যায়ে অনবরত সঠিক পরিশ্রমে সফল হতে পারেন। আমাদের এখানে পুলিশ সুপারের একজন ওয়াইফ ক্লাশ করছেন এবং কোর্সে ভাল করছেন, অথচ আমরা আসলে জানতামও না। এমনিভাবে ম্যাজিস্ট্রেট কোর্স সম্পন্ন হওয়ার দিন অনেক যুবা জানলেন এতদিন তারা ম্যাজিস্ট্রেটের সাথে একি প্লাটফর্মে ক্লাশ করেছে। বর্তমানে রাংগামাটি এবং বান্দরবান থেকেও আদিবাসীদের অনেক সাড়া পাওয়া যাচ্ছে নকরেক আইটিতে যা আমরা খুবই ইতিবাচক দিক বলি।

বর্তমানে আইটি বিপ্লবের সাথে নিজেদের শিক্ষা এবং দক্ষতা বৃদ্ধির ক্ষেত্রে যুবাদের বিপ্লব ঘটাতে হবে।
শেখার আগ্রহ এবং নিজেকে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন পরিবর্তনের সাথে মানিয়ে নিতে না পারলে টিকে থাকা অসম্ভব হয়ে পড়বে। বর্তমান শিক্ষার উপর ভর করে তুমি খুব ভালো রেজাল্ট করলে, বিদেশের শিক্ষার সাথে একটা কথা যেটা যায়, তুমি সেই স্কুলিং-ই করলে এবং এ থেকে গ্রাজুয়েট হয়ে ফিরলে কিন্তু প্রকৃত শিক্ষা তোমাকে নিজেকে ছাপিয়ে সৃষ্টির কথাই বলবে। সৃষ্টি সুখের উল্লাসে মাতার পূর্বশর্তই হচ্ছে নিজেকে জানো এবং স্কুলিং নয় এডুকেশনটা ধারণ করতে হবে।

প্রতিযোগী নয়, সহযোগী হয়ে এগিয়ে যাও, কারণ যে হার মানেনা তাকেতো এই জীবনে কখনোই সাধ্য নেই কারোর হারিয়ে দেবার।
আইটি সেক্টরের বিপ্লবে যুবাদের সম্পৃক্ততা বৃদ্ধি পাক, এবং দক্ষ আইটি উদ্যোগক্তা বাড়ুক।

যুবাদের কিংবা আগ্রহী ১৬-৬১ বয়সীদের আইটিতে ক্যারিয়ার বিষয়ক সকল প্রশ্নের উত্তর দিতে প্রস্তুত থাকবে আমার টিম নকরেক আইটি ইন্সটিটিউট ফার্মগেট ওয়ানগালায় সারাদিনব্যাপী। (গারোদের প্রধান উৎসব) । শুভকামনা।

বিঃ দ্রঃ আজ থেকে দ্য গারোজ ২৪ এ যোগ হচ্ছে ‘স্ট্যাটাস অব দ্য ডে’! ৩ টি বেস্ট স্ট্যাটাস বাছাই করে ছাপা হবে প্রতিদিন!

Sharing is caring! Please share with friends & family if you find this website useful

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *