সবার প্রিয় মানুষ জিবিসি’র প্রেসিডেন্ট তনয়ানন্দ রেমা বুলবুলের শেষ বিদায়ঃ সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধায়, ভালোবাসায়

চির নিদ্রায় শায়িত হলেন নেত্রকোনা জেলার রাণীখং-এর গ্রামের বাড়ি বিজয়পুরে। 

জেফিরাজ দোলন কুবি, 

গারো ব্যাপ্টিস্ট কনভেনশন (জিবিসি) এর প্রেসিডেন্ট তনয়ানন্দ রেমা বুলবুল সমাহিত হলেন তাঁর গ্রামের বাড়ি বিজয়পুর তাঁর শেষ অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় যোগ দেন ময়মনসিংহ – ১ আসনের তরুণ সাংসদ জুয়েল আরেং, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা উপাধ্যক্ষ রেমন্ড আরেং, বিভিন্ন মন্ডলীর ধর্মীয় নেতা, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। যোগ দেন হাজার হাজার সাধারণ নারীপুরুষ।


সবার প্রিয় তনয়ানন্দ রেমা বুলবুল। বিদায়!

তাঁকে শেষ বারের মত এক নজর দেখার জন্য অগণিত ভক্ত, শুভানুধ্যায়ী, বন্ধু – স্বজন ছূটে আসেন দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে।

 

অবশেষে, সবার প্রিয় মানুষ জিবিসি’র প্রেসিডেন্ট তনয়ানন্দ রেমা বুলবুলের শেষ বিদায়ঃ সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধায়, ভালোবাসায় আর প্রিয় জনদের গগণ বিদারী কান্নায়। সর্ব শক্তিমান ঈশ্বর তাঁর আত্নার চিরশান্তি দান করুন।


জুয়েল আরেং এম পি এবং নেতৃবৃন্দ

 

১০ ফেব্রুয়ারি না ফেরার দেশে চলে যান। তাঁর অকাল প্রয়াণে জিবিসি তথা গারো সমাজে অসীম শূণ্যতা এবং গভীর শোক নেমে আসে । সকলেই মনে করছেন, এই মহান নেতার অভাব পূরণ হবার নয়।

তোমার সমাধি ফুলে ফুলে ঢাকা, কে বলে তুমি নাই? তুমি আছ, মন বলে তাই । বিদায় …

 

তনয়ানন্দ রেমা ১৯৫৩ সালে জম্ম গ্রহণ করে। ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক (সম্মান) এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রী অর্জন করেন। তিনি বিসিএস এ উত্তীর্ণ হয়েও গারো সমাজের জন্য কাজ করবেন বলে সেখানে যোগ না দিয়ে একটি আদিবাসী বন্ধব একটি এনজিও তে যোগদান করেন। তিনি বিভিন্ন সময় ওয়ার্ল্ড ভিশন, বাংলাদেশের উচ্চ পর্যায়ে TEAM LEADER, Technical Support Leader, বিভিন্ন দেশের দূতাবাসে কন্সাল্ট্যান্ট হিসেবে কাজ করেছেন, নেতৃত্ব দিয়েছেন।

উপাধক্ষ্য রেমন্ড আরেং এবং নেতৃবৃন্দের একাংশ

 

নির্মোহ মানুষ, সদালাপী, বিনম্র মানুষ হিসেবে তিনি তাঁর বন্ধু – স্বজন এবং সহকর্মীদের ছিলেন খুব একজন প্রিয় মানুষ। তিনি ছিলেন অনেকের বিপদের বন্ধু, দিশাহীন অনেক মানুষের অনেক দিশা। তিনি ছিলেন একজন দার্শনিক যিনি গারো সমাজের প্রকৃত পরিবর্তন চেয়েছিলেন। এজন্য তিনি আজীবন নীরবে কাজ করে গেছেন। কখনই প্রচারমুখি ছিলেন না।

 

তনয়ানন্দ রেমা ব্র্যান স্ট্রোক  জনিত কারণে গুরুতর অসুস্থ হয়ে সন্মিলিত সামরিক হাসপাতালে আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন।

 

তিনি স্ট্রোক করে এর আগে তাকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল হাসপাতালে নিয়ে গেলে উন্নত চিকিতসার জন্য তাকে ঢাকা নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন সংশ্লিষ্ট মেডিক্যাল কলেজের ডাক্তারগণ।

 

উল্লেখ্য, ২১ শে ফেব্রুয়ারী, ২০১৫  নলছাপ্রা, কলমাকান্দা, নেত্রকোনায়  জিবিসি’র নির্বাচনে তিনি বিপুল ভোটে জিবিসি’র প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচিত হয়েছিলেন। ২০১৭ সালে তিনি দ্বিতীয়বারের মত নির্বাচিত হয়ে মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত তিনি এই দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন।

 

তাঁর এই মৃত্যুতে রেভাঃ ফাঃ নীরেন ম্রং পি এই ডি গভীর শোক প্রকাশ করে সকলের কাছে তাঁর আত্মার শান্তি কামনায় প্রার্থনা চেয়েছেন। আরও শোক প্রকাশ করেছেন পাষ্টর অবিনাশ নকরেক, গারো সমাজের বর্ষীয়ান কবি ও গল্পকার জর্জ নীলু রুরাম, কবি, লেখক ও গীতিকার জেমস জর্নেশ চিরান, কবি স্টিফেন সমর সাংমা, বিরিশিরি কালচারাল একাডেমির পরিচালক শুভ্র আরেং সহ আরও অনেকেই।

 

বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর কমান্ডো পাইলট এবং স্কোয়াড্রন লীডার সাগ্রে উৎস রেমার (ছোট ছেলে) সাথে তনয় আনন্দ রেমা বুলবুল

 

তাঁর অকাল প্রয়ানে বাংলাদেশ গারো ছাত্র সংগঠন (বাগাছাস), TWA, গাসু, আজিয়া, জি এস এফ এবং অন্যান্য সংগঠনের নেতৃবৃন্দ গভীরভাবে শোক এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেছেন।

 

 

 

শেষ বিদায়ের পূর্ব মুহূর্তে প্রিয়জনদের সানিধ্যে!

 

দ্য গারোজ২৪ এর সম্পাদক বাবুল ডি’ নকরেক দ্য গারোজ২৪ পরিবারের পক্ষে গভীর শোক এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। তাঁর অভাব পূরণ হওয়ার নয় বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

যেতে নাহি দিব! হায়! তবু যেতে দিতে হয়, তবু চলে যায় …

 

পুরো গারো জাতি তাঁর আত্মার কল্যাণ কামনা করে বিশেষ প্রার্থনা করছে।


Sharing is caring! Please share with friends & family if you find this website useful

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *