ডরথী নকরেক ডজন আর নেই

জেফিরাজ দোলন কুবি, 

ডরথী নকরেক (ডজন) আর নেই! ঈশ্বর তাঁর আত্মার চিরশান্তি দান করুন। তিনি দীর্ঘদিন যাবত অসুস্থ্য হয়ে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের পরামর্শে বাড়িতে থেকেই চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। আজ ভোর ৫ঃ৩০ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তাঁর জন্য বিশেষ প্রার্থনা অনুষ্ঠানের লাইভ দেখতে এখানে ক্লিক করুন

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল হয়েছিল ৭৫ বছর। তিনি দীর্ঘদিন ধরে হাই গ্রেড গ্লিওমা (ব্রেইন টিউমার) এ আক্রান্ত ছিলেন। মৃত্যুর পূর্বে তিনি কয়েক দফায় ময়মনসিংহ মেডিক্যাল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। বিশেষজ্ঞ ডাক্তারগণ জানিয়েছেন তাঁর যে বয়স এবং তাঁর টিউমারের যে ধরণ তাঁর চিকিৎসা আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানে এখনও নেই। এই টিউমার অস্ট্রোপাচারযোগ্যও নয়। এ ধরণের রোগী অপারেশনের টেবিল থেকে সাধারণত ফিরে আসেন না। তাই ডাক্তারগণ তাঁকে বাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে নিয়মিত ঔষধ-পথ্য চালিয়ে যাবার পরামর্শ রাখেন।

স্বর্গীয় জীপেন পল রুগার অসুস্থ্যকালীন সময় তোলা ছবিতে ডরথী নকরেক! ২০০৫ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি ক্যান্সারে মারা যান তিনি

বাড়িতে ফিরিয়ে নেওয়ার পর তাঁর পরিবার তাঁকে ঢাকা নিউরো সাইন্স হাসপাতালে ভর্তির চেষ্টা করেন। সেখানকার বিশেষজ্ঞ ডাক্তারও একই মত ব্যক্ত করেন এবং তাঁকে হাসপাতালে না রেখে বাড়িতে রেখে চিকিৎসা করার মত দেন।

ডরথী নকরেক – সন্তান ও নাতিদের সাথে তাঁর শেষ যাত্রায়

তিনি স্বর্গীয় জিপেন পৌল রুগা’র স্ত্রী। মৃত্যুকালে তিনি ৪ ছেলে, ৩ মেয়ে, তাঁদের পরিবার, নাতি-নাত্নী সহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন রেখে গেছেন।

ব্যক্তি জীবনে তিনি ছিলেন খুব অমায়িক, নিরহংকার, অসম্ভব ধৈর্যশীল, খুব সাধারণ, স্বল্পভাষী, আত্মপ্রত্যয়ী সাহসী নারী।

জাপান প্রবাসী মেয়ে পান্না নকরেক এর সাথে চিকিৎসা চলাকালীন সময়ে 

ডরথী নকরেক লেখক, গীতিকার ও সাংবাদিক বাবুল ডি’ নকরেক এর মা এবং নকরেক আইটি’র সিইও এবং তরুণ উদ্যোক্তা সুবীর জেভিয়ার নকরেক এর নানী।

যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী ছেলে বাবুল ডি’ নকরেক এর সাথে 

আজ বিকেল ৫ টায় টাঙ্গাইল জেলার মধুপুর উপজেলার গায়রা গ্রামে স্বামীর কবরের পাশে সকল ধর্মীয়, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক আনুষ্ঠানিকতা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। তার শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে আত্মীয় পরিবার পরিজন ছাড়াও বিভিন্ন দলের রাজনীতিবীদ, সংবাদ কর্মী, ধর্মীয় নেতা, এনজিও কর্মকর্তা, আদিবাসী ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, আদিবাসী সংগঠন জয়েনশাহী, টি ডব্লিউ এ এর নেতৃবৃন্দ এবং জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল শ্রেণীর মানুষ যোগদান করেন।
Chat Conversation End
Type a mess

Sharing is caring! Please share with friends & family if you find this website useful

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *