গারো ভাষায় প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষার জন্য প্রণীত বই সম্পর্কীত প্রাসঙ্গিক আলোচনা

হিমেল রিছিল

জাতীয় শিক্ষাক্রম পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃক ২০১৭ শিক্ষাবর্ষ থেকে গারো ভাষায় প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষার জন্য প্রণীত সবগুলো বই নেট থেকে ঘেটে বের করলাম। সবগুলোই ডাউনলোড করলাম। তার মধ্য থেকে তিনটি বই প্রিন্ট করে পড়তে থাকলাম বেশ আগ্রহভরেই। বই তিনটির নাম যথাক্রমে:

১. Abachengao Sningani-Noksako Nie Snigna
২. An.sengatani Atchu
৩. Ambe Aro Do.kruni Golpo

উন্নয়ন ও অভিযোজনে রয়েছেন আলবার্ট মানখিন, সৃজন সাংমা, বাধন আরেং এবং বাসর দাংগ। এখানে উল্লিখিত বই সম্পর্কীত কিছু বিষয় আলোচনা করতে চাই।

প্রথমত, সারাবিশ্বব্যাপি যখন উচ্চারণ এবং বানানের সাথে সমতা বিধানের জোর চেষ্টা চলছে, সংস্কার চলছে, পরিমার্জন চলছে∑তখন এই পুস্তকগুলোতে দেখা গেল তার উল্টো দিক। দেখা গেল এখানে সে চিরাচরিত আ.চিক ভাষারীতি অনুসরণ বা অনুকরণ করা হয়েছে। আ.চিক ভাষারীতি মেনে এখানে গারো শব্দগুলোতে k, p, এবং t-এর পর h দেওয়া হয়নি যা আ.চিক ভাষারীতির প্রধান সীমাবদ্ধতা। এই k, p, এবং t-এর পর h না দেওয়ায় উচ্চারণের যে কীরকম বিভ্রাট ঘটে তার অজস্র উদাহরণ অহরহই পাওয়া যাবে। আমার পরিচিত এক লোককেই বারবার ‘ফাজং’-কে ‘পাজং’, ‘ফাং’-কে ‘পাং’, ‘ফামং’-কে ‘পামং’, ‘খামাল’-কে ‘কামাল’ ইত্যাদি বলতে শুনেছি। এতে করে তাকে কি আমরা দোষ দিতে পারি? মনে হয় না। কারণ সে হয়তো কোনো বই থেকে Pajong, Pang, Pamong, Kamal ইত্যাদি বানানগুলো শিখে এসেছে।

ভাষায় যদি k/ক, p/প, t/ত এবং kh/খ, ph/F/ফ, th/থ উভয় ধরনের উচ্চারণ থাকে তাহলে উভয় ধরনের বানান থাকা যুক্তিযুক্ত। এতে পাঠক বা যারা শিক্ষার্থী তাদের উচ্চারণ আয়ত্তে আসবে সহজেই। ভাষাশিক্ষা হবে সহজতর। উচ্চারণ বিভ্রাট ঘটবে কম।

যা হোক, ‘ব্যবহারিক গারো অভিধান’-এর ভূমিকা অংশে এবং প্রস্তাবিত বানানরীতিতে এ বিষয়ে বিস্তারিত লিখেছিলাম। সেদিকে যাচ্ছি না। আমাদের সামনে সুযোগ রয়েছে সংস্কারের, পরিমার্জনের কিংবা এ পুস্তকের ভাষায়∑উন্নয়ন ও অভিযোজনের। আমরা বিষয়টা নিয়ে অধিকতর বিচার-বিশ্লেষণ করতে পারি।

দ্বিতীয়ত, প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষার জন্য প্রণীত গারো ভাষার এ বইগুলোতে কিছু ইংরেজি শব্দগুলোকে ভুল বানানে লেখা হয়েছে। যে শব্দগুলোর ব্যুৎপত্তি ইংরেজি সে শব্দগুলো শুদ্ধ ইংরেজি বানানে লেখাটাই যুক্তিযুক্ত বলে মনে করি। নিচে কিছু নমুনা উপস্থাপন করা হলো।

শুদ্ধ—————যেভাবে লিখিত
Microphone—-Maikropon
Mike————-Maik
Speaker——–Spikar
Light ————-Lait
Iron————–Airon
Lamp————Lem
Rail————–Rel
Aeroplane—–Eroplen
Launch———Lonch
Rickshaw——Riksa
Bus————–Bas
Bulb————-Balb
Glass———–Glas

এর মধ্যে Lamp বানানটা বিবর্তিত হয়ে ‘লেম/lam’ এবং Rail বানানটা বিবর্তিত হয়ে ‘রেল/ral’ কিংবা বাংলা ‘রেল’ থেকে এসে ব্যবহৃত হতে পারে। বর্তমানে গারোদের ‘লেম’ এবং ‘রেল’ উচ্চারণই করতে দেখা যায়। ‘রিকসা’ শব্দটি একটি জাপানি শব্দ। সেক্ষেত্রে ‘riksa’ ব্যবহৃত হতে পারে।

তৃতীয়ত, রাক্কা চিহ্ন ব্যবহারের ক্ষেত্রে কিছু ভুল চোখে পড়েছে। দেখা যায়, যে শব্দগুলোর বানানে রাক্কা চিহ্ন প্রয়োজন যে শব্দগুলোর বানানে রাক্কা নেই। আবার যেখানে প্রয়োজন নেই সেখানে রাক্কা দেওয়া আছে। নিচে কিছু নমুনা দেওয়া হলো।

শুদ্ধ (আ.চিক ভাষারীতি অনুযায়ী) —-যেভাবে লিখিত
Gangipa———Gan.gipa
Gangipako——Gan.gipako
Na.simang——Nasimang
Ong.jok———-Ongjok
Man.aha——–Manaha
Rimanga——-Rim.anga
Sing.a———–Singa
Sarao———–Sa.rao
Aganna——–Agan.na
Ka.sana——-Kasana
Ruanni——–Ruan.ni

লক্ষণীয় যাঁরা পুস্তকগুলোর উন্নয়ন এবং অভিযোজনের সাথে জড়িত তাঁরা সকলেই ‘নাংরিমা গারো ল্যাঙ্গুয়েজ কমিটি’-র সদস্য। এ কমিটি কবে গঠিত হলো বা এ কমিটি গঠনের প্রেক্ষাপট কী বা এর সদস্য হওয়ার ক্রাইটেরিয়াগুলো কী কী তা জানার আগ্রহ ছিল।

আরও যে বিষয়গুলো চিন্তার খোরাক যোগায় তা হলো এদেশি অধিকাংশ গারোই আ.বেং ভাষায় কথোপকথনে অভ্যস্ত। আ.চিক ভাষা সংকলিত ভাষা হলেও, এর মধ্যে পার্বত্য আ.বেং শব্দের প্রাধান্য থাকলেও এ ভাষার ক্রিয়া ও সর্বনামগুলোতে আ.ওয়ে ডায়ালেক্ট-এর প্রাধান্য রয়েছে। যার কারণে এ ক্রিয়া এবং সর্বনামগুলোতে এদেশি গারোদের অভ্যস্ততা নেই।

বাড়িতে মা-বাবার সাথে বলি একটা আর স্কুলে গিয়ে শিখি অন্যটা–এরূপ ঘটনাই ঘটবে বোধয়। যা হোক, কিছু কিছু শব্দ প্রতিশব্দ হিসেবে গ্রহণযোগ্য হতে পারে। যেমন: ‘okama’-কে ‘রিকগামা’-র প্রতিশব্দ হিসেবে গ্রহণ করা যেতে পারে। যদিও ‘An.sengatani Atchu’ বইটির প্রথম দিকে লেখা আছে ‘okgama’–যে বানানটি আমি বেশ কয়েকটি আ.চিক অভিধান ঘেটেও খুঁজে পাইনি।

সর্বোপরি এ উন্নয়ন এবং অভিযোজনকে আরো শাণিত এবং আধুনিক করতে হলে, বড়দের জন্য উপযোগী করতে হলে প্রথমে আমাদের বিজ্ঞানভিত্তিক বানানরীতি এবং উচ্চারণরীতি প্রণয়ন করা প্রয়োজন। তাহলেই এ প্রয়াসের সার্থকতা আসবে বলে মনে করি।

হিমেল রিছিল, কবি এবং সহকারী কমিশনার এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট

Sharing is caring! Please share with friends & family if you find this website useful

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *