অনূর্ধ্ব-১৫ সাফ ফুটবলে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন গারো আদিবাসী মেয়ে

ক্রীড়া প্রতিবেদক, ঢাকা থেকে

অনূর্ধ্ব-১৫ সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ টুর্নামেন্টে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন কলসিন্দুরের গারো আদিবাসী মেয়ে মারিয়া মান্দা (১৪)। ইতোঃমধ্যেই ক্যাপ্টেন হিসেবে তাঁর নাম ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে)। মারিয়া মান্দা (১৪) সংবাদ সম্মেলনেও যোগ দিয়েছেন।

ইংল্যান্ড থেকে সরাসরি অনলাইনে ফ্রী আইটি কোর্স করতে চান? নিচের ব্যানারে ক্লিক করে আজই যে কোন একটি কোর্স বেছে নিন! লিমিটেড অফার! সুবর্ণ সুযোগ! শুধু মাত্র দ্য গারোজ২৪ এর পাঠকদের জন্য!

মারিয়া টুর্নামেন্ট নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন,‘নিজেদের মাঠে খেলা। এই সুযোগ কাজে লাগাতে সর্বশক্তি নিয়ে আমরা খেলতে নামব। জয়ের চেষ্টা করব। এবং আমরা জয়ী হব।’ মেয়েদের এমন আত্মবিশ্বাসী কথার ফল আগেও পেয়েছে বাংলাদেশ। এবারো তাই মারিয়া মান্দা দলকে সেরা হিসেবেই দেখতে চায় বাংলাদেশের সব নাগরিক।




আজকেই ঢাকায় শুরু হবে মেয়েদের অনূর্ধ্ব-১৫ সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ এর প্রথম খেলা। গত শনিবার বাফুফে ভবনে অনুষ্ঠিত হলো আসরে খেলতে যাওয়া ৪ দল স্বাগতিক বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল ও ভুটানের আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন। সেখানে কথা বলতে এসে বাংলাদেশ কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন বললেন,‘যে ৩ টি দল আমাদের এখানে এসেছে তাদের সঙ্গে প্রতিনিয়তই আমাদের দেখা হয়। আমরা সবসময়ই একে অপরের সঙ্গে দেখা করি। সবার সাথে আন্তরিক একটা সম্পর্কও তৈরি হয়েছে। আমি সকল দলকেই স্বাগত জানাচ্ছি। আশা করি, সুন্দর একটা টুর্নামেন্ট হবে এবং বাংলাদেশের দর্শকরা ভালো একটা টুর্নামেন্ট দেখতে পারবে।’




তাঁর কথায় দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোকে নিয়ে গঠিত সাফের মূলমন্ত্রই যেন মিশে থাকলো। তবে বন্ধুত্বের বাতাবরণের মাঝে রবিরার থেকে শুরু হতে যাওয়া মাঠের লড়াইয়ে উত্তাপের আগাম বার্তাও থাকলো চার দলের কোচ এবং অধিনায়কের বক্তব্যে।

ফুটবলে আমাদের অদম্য মেয়েরাঃ আরেকবার দেখে নিন!

 

Spark Online Training by Edureka

.
পূর্বে পুরুষদের জাতীয় দলের টুর্নামেন্ট আয়োজনের মধ্যেই সাফ ফুটবলের কার্যক্রম সীমাবদ্ধ থাকলেও সাম্প্রতিক সময়ে এর পরিধি অনেক বেড়েছে। নারী সাফ ফুটবল আয়োজিত হয়ে আসছে ২০১০ সাল থেকে। এতে রয়েছে ছেলেদের বয়ষভিত্তিক সাফ টুর্নামেন্ট এর বর্ণীল আয়োজন। তবে অনূর্ধ্ব-১৫ মেয়েদের নিয়ে সাফের এটিই প্রথম আসর।

১৪৯ টি বিশ্ববিদ্যালয়ের যে কোন কোর্স ঘরে বসেই করা যাচ্ছে কোর্সেরা’য়! সবগুলো কোর্স দেখার জন্য নিচের ব্যানারে ক্লিক করুন।
Coursera CS

১৭ ডিসেম্বর শুরু ৪ টি দলের খেলাগুলো হবে রাউন্ড রবিন লিগ পদ্ধতিতে। প্রথম পর্বে প্রত্যেক দল একবার করে একে অপরের সাথে মুখোমুখি হবে। সেখান থেকে সেরা দুই দল খেলবে ফাইনালে। ২৪ ডিসেম্বর টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে। বাফুফে’র তথ্যমতে, সবগুলো ম্যাচই অনুষ্ঠিত হবে কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে।


Fiverr

দক্ষিণ এশিয়ার দলগুলোর মধ্যে ভারত, নেপাল বরাবরই বড় শক্তি – বিশেষ করে মেয়েদের ফুটবলে। গত বছর দুই ধরে বাংলাদেশের নামটা বেশ সমীহের সাথে উচ্চারিত হয় তাদের পাশে। সর্বশেষ সাফ ফুটবলে মূল জাতীয় দলের রানার্স আপ হওয়া, এএফসি অনূর্ধ্ব-১৪ আঞ্চলিক ফুটবলে ভারত, নেপালকে পেছনে ফেলে টানা ২ বার শিরোপা জেতে বাংলাদেশের এই বর্তমান দল। এবারের আসরে তাই বাংলাদেশকেই ফেবারিট ভাবছে সবাই।
Discover Data Science with Coursera

অংশ নেওয়া বাকী ৩ দলের কোচদের কথাতেও থাকলো তার প্রতিধ্বনি। ভারত কোচ ময়মল রকি বলছেন,‘বাংলাদেশ খুব ভালো দল। শেষবার তাঁদের কাছে আমরা হেরেছি এএফসি অনূর্ধ্ব-১৪ আঞ্চলিক ফুটবলে। তবে সব দলই সাফল্য পাওয়ার জন্য যথেষ্ট শক্তিশালী। বয়সভিত্তিক পর্যায়ে বাংলাদেশ ভালো করছে। আশা করি ফাইনালেও আমরা তাঁদের মুখোমুখি হব।’ নেপালের কোচ গঙ্গা গুরুং বলেন,‘আমার দৃষ্টিতে এই টুর্নামেন্টে বাংলাদেশ সবচেয়ে শক্তিশালী দল। তাঁরা ট্যাকটিক্যালি অনেক এগিয়ে।’




গোলাম রব্বানী ছোটন কিন্তু তাঁর শিষ্যদের নিয়ে সবার দেওয়া ‘সেরা তকমা’টা মাথায় নিতে চাইলেন না! তিনি বললেন,‘হট ফেভারিট বিষয়টা এমন নয়। আমরা সব সময় বলে আসছি আমরা সেরাটা দিতে চেষ্টা করবো। এবং ভালো খেলার জন্য যা যা করা দরকার সেটা আমরা করবো।’

মাত্র ১ বছর আগে তাজিকিস্তানে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৪ আঞ্চলিক ফুটবলের শিরোপা জয়ের পথে ভারতকে ৩-১ ও ৪-০ গোলে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। নেপালকে ভাসিয়েছিল ৯-০ গোলের বন্যায়। তবে নতুন টুর্নামেন্ট শুরুর আগে অতীত ম্যাচগুলো ভুলে যেতে চান ছোটন,‘একবছর এর মধ্যে পেরিয়ে গেছে। নেপালও শক্তিশালী দল। আমাদের টিমেও অনেক পরিবর্তন হয়েছে। তবে আমরা আমাদের প্রতিপক্ষকে শক্তিশালী হিসেবেই নিচ্ছি। তাদের সঙ্গে জয়ের জন্য যতোটুকু শক্তি প্রয়োগ করা দরকার আমরা করবো।’

রোববার নেপালের বিপক্ষেই প্রথম ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। ম্যাচটি শুরু হবে বেলা ২.৩০ মিনিটে। বাংলাদেশ জয়ী হবে – সবার প্রত্যাশা একটিই।

Testing with Selenium Online Training by Edureka

 

এদিকে গারো আদিবাসী মেয়ে মারিয়া মান্দা’র জাতীয় দলের ক্যাপ্টেন হওয়ায় উজ্জীবিত গোটা গারো তরুণ সমাজ। মারিয়ার দল বাংলাদেশ ফাইনালেও জয় ছিনিয়ে এনে বাংলাদেশ আবার বিশ্বের দরবারে তুলে ধরবেন বলেই প্রার্থনা গোটা গারো আদিবাসী সমাজ এবং বাংলাদেশের।

Career skills to jumpstart your future.

Do you want to start a Freelancing Career? Want to make money from anywhere in the world? Want to earn right from home? Make your living simply working ONLINE? Want to FIRE YOUR BOSS? Please click here for training!



Sharing is caring! Please share with friends & family if you find this website useful

6 thoughts on “অনূর্ধ্ব-১৫ সাফ ফুটবলে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন গারো আদিবাসী মেয়ে”

  1. আমি একজন গারো হিসাবে আজকে অনেক গর্ববোধ পরছি, আমাদের গারো আদিবাসী এই মাতৃভূমির জন্য অনেক অবদান রাখতে পারে। শুভ কামনা মারীয়া তোমার জন্য এবং আমাদের প্রিয় বাংলাদেশের জন্য। জয় হোক বাংলাদেশ।

  2. হৃদপিন্ডে প্রাণের অভিনব শিহরণ বয়ে যায়। পুরো বিশ্বের দরবারে এভাবেই গারো জাতিকে তুলে ধরছে আমাদের বোনেরা। গারো জাতির গর্ব তোমরা। শুভেচ্ছা শুভকামনা এবং সাফল্যমন্ডিত হোক আগামীর পথ চলা। গর্বে বুকটা ভরে যায় যখন দেখি আমার বোনেরা বাংলাদেশের পতাকা এবং নিজের জাতিকে তুলে ধরছে। প্রাণে স্পন্দন খুজে পাই। অজপাড়াগায়ের বোনেরা আজ মাতিয়ে বেড়াচ্ছে গোটা বিশ্বকে, জাতি অবাক তাকিয়ে রয় তোমাদের দেখে। সাবাস। স্যালুট তোমাদের বোন।

  3. I salute and proud for Maria Manda. I am keeping my prayer her glory and wish her all the best her bring honor for the country.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *